বৃহস্পতিবার

২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
spot_img

নতুন নিয়মে রোমান্টিক সম্পর্ক ‘সিচুয়েশনশিপ’

মানব সম্পর্কের রহস্য মহাকাশের নক্ষত্ররাজির চেয়ে কম দুর্বোধ্য নয়। এ কথা শিল্প, সাহিত্য, চলচ্চিত্র থেকে এবং সর্বোপরি মানুষ জেনেছে তার নিজের জীবন থেকেই। যতই দিন কাটছে, আমরা জ্ঞানে-বুদ্ধিতে-প্রযুক্তিতে বেড়ে চলেছি, আমাদের জীবনের জটিল রাস্তাগুলোতেও অলিগলি বাড়ছে। ঠিক তেমনি বাড়ছে সম্পর্কের শ্রেণিকরণ।

আগে যে সম্পর্কটা সহজ বাংলায় ‘প্রণয়’ বা ‘প্রেম’ বলে চালিয়ে দেওয়া যেত, এখন তা অতটা সহজ আর নেই। রোমান্টিক সম্পর্কের নাম দেওয়া কিংবা বেনামেই রেখে দেওয়াটা এখন অনেকটা পরিস্থিতি বা সিচুয়েশনভিত্তিক। আর তাই পরিস্থিতির উপর দাঁড়িয়ে নতুন এক টার্মের সঙ্গে আমাদের পরিচয় হচ্ছে এই হাল জমানায়, যার নাম সিচুয়েশনশিপ।

এ ধরনের সম্পর্কের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হচ্ছে দায়হীনতা। প্রচলিত জীবনযাত্রায় আমরা যেকোনো রোমান্টিক সম্পর্কে পরিণতি কিংবা পরিণতির দিকে যাওয়ার চেষ্টা, একে অপরের প্রতি দায়বদ্ধতা দেখে অভ্যস্ত। কিন্তু এই সম্পর্কে পরিণতির দিকে যাওয়ার চেষ্টা বা কারো প্রতি কারো দায়বদ্ধ থাকার কিছু নেই।

অক্সফোর্ড ডিকশনারির ভাষ্যমতে, সিচুয়েশনশিপ বলতে এমন রোমান্টিক সম্পর্ক বোঝায়, যার আদতে কোনো প্রতিষ্ঠিত রূপ নেই। কেউ কেউ মজা করে একে ‘বন্ধুর চেয়ে কিছু বেশি, প্রেমিক-প্রেমিকার চেয়ে কিছু কম’ বলেও সংজ্ঞা দেওয়ার চেষ্টা করেন। তবে এ ধরনের সম্পর্ককে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ‘অসংজ্ঞায়িত’ই রেখে দেওয়া হয়।

কীভাবে বুঝবেন সিচুয়েশনশিপে আছেন?

ভবিষ্যৎ নিয়ে তেমন একটা চিন্তা নেই, আজকের মুহূর্ত উপভোগই বড় কথা মনে হচ্ছে এবং কেউ কাউকে আগামীতে একসঙ্গে থাকবেন কি না সেই কথা দিচ্ছেন না। ‘যা হবে, দেখা যাবে’ ভেবে দিব্যি দিন কাটিয়ে দিচ্ছেন। আপনাদের সম্পর্কের জাহাজ পরিস্থিতির হাল ধরে বয়ে চলেছে, এর দিক-নির্দেশনা নিয়ে তেমন কোনো চিন্তাভাবনা কারো মনে নেই। ঠিক প্রেমও করছেন না, আবার বিষয়টা বন্ধুত্বের গণ্ডিতেও আটকে নেই। দুজনের কারোরই নেই সম্পর্কটাকে প্রতিষ্ঠিত করার বা কোনো নাম দেওয়ার তাগাদা। তাহলে ধরে নিতে হবে, এটি সিচুয়েশনশিপ।

সমালোচনা যতই থাকুক, এ কথা তো সত্য যে পণ্য হোক বা সম্পর্কের ধরন– সবকিছুরই উদ্ভাবন কোনো না কোনো প্রয়োজনীয়তা থেকে। জীবনযাত্রার গতি-প্রকৃতির সঙ্গে চাহিদার রূপ পাল্টায়। আমাদের আগের কিংবা তারও আগের প্রজন্মের চাহিদা থেকে প্রায় ক্ষেত্রেই আমাদের চাহিদা ভিন্ন। ঠিক তেমনি, কোনো কোনো মানুষ একসময় হয়তো একটা দায়হীন, ঝামেলাবিহীন, ভারমুক্ত রোমান্টিক সম্পর্কের চাহিদা অনুভব করেছে এবং এরপরই সিচুয়েশনশিপের মতো ধারণার জন্ম হয়েছে।

তবে হাল আমলে বহুলচর্চিত বা লেবেলিং করা হয়েছে বলে যে শুধু আজকের যুগেই এ ধরনের সম্পর্ক হালে পানি পেয়েছে, এমনটাও না হতে পারে। হয়তো জনপ্রিয়তা বা আলোচনা এখন বেশি হচ্ছে।

অন্য যেকোনো বিষয়ের মতোই সিচুয়েশনশিপের বেশ কিছু সমান্তরাল সুবিধা-অসুবিধা রয়েছে এবং ব্যক্তিভেদে, ব্যক্তির চাহিদা ও জীবনে সামলে নেওয়ার ভঙ্গিমা অনুযায়ী তা ভিন্ন হয়।

লেখক ও মনস্তাত্ত্বিক সুজান আলবার্স মনে করেন, যদি এক পক্ষের প্রত্যাশা অপর পক্ষ থেকে আলাদা হয় এবং তা এক বিন্দুতে না মেলে তবে এসব ক্ষেত্রে সমস্যা হতে পারে।

spot_img

এ বিভাগের আরও সংবাদ

spot_img

সর্বশেষ সংবাদ

spot_img