বৃহস্পতিবার

২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
spot_img

বিশ্বের ৪০ দেশে উৎসবকেন্দ্রিক পণ্য বাংলাদেশের সেমাই

দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বাংলাদেশি ব্র্যান্ডের সেমাই এখন বিশ্বের ৪০টি দেশে রপ্তানি হচ্ছে। ওইসব দেশে এখন উৎসব ও অনুষ্ঠানকেন্দ্রিক পণ্য বাংলাদেশি সেমাই। সারা বছর বিভিন্ন অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে সেমাই বিক্রি হয়, তবে সেমাইয়ের চাহিদা সবচেয়ে বেশি থাকে দুই ঈদের সময়। এখন ঈদের আগে দেশ-বিদেশে সেমাইয়ের বিক্রি বেড়েছে।

বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে ঈদের সকালে খাবারের তালিকার অত্যাবশ্যকীয় পণ্য হয়ে উঠেছে সেমাই। এই অঞ্চলের মানুষ এখন বিশ্বজুড়ে বিস্তৃত। তারাই অন্যান্য দেশে এ বাংলাদেশি সেমাইয়ের বড় ক্রেতা। মূলত তারাই বাংলাদেশি সেমাইয়ের বড় বাজার তৈরি করেছে বিশ্বের ওইসব দেশে। এতে সেসব দেশেও এখন উৎসবকেন্দ্রিক পণ্য এ সেমাই।

এদিকে এখন ঈদবাজারে অন্যান্য পণ্যের সঙ্গে বেড়েছে সেমাই বেচাকেনার পরিমাণ। সেমাই প্রস্তুতকারকেরা বলছেন, প্রতিবছর দেশ-বিদেশে ঈদের সময় সেমাইয়ের চাহিদা বাড়ে। সেই ধারাবাহিকতায় এবারের ঈদের মৌসুমেও সেমাইয়ের ভালো বেচাকেনা হবে বলে আশা তাদের। এ বছর বিক্রি ২০ থেকে ২৫ শতাংশ বাড়বে।

খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত এক দশকে চিত্র কিছুটা বদলেছে। সেমাই এখন পরিণত হয়েছে অনেকের নিত্যনৈমত্তিক খাবারও। উৎসব-পার্বণ ছাড়াও থাকে চাহিদা। এ অল্প সময়ের মধ্যে সেমাইয়ের বাজারেও এসেছে একটি বড় পরিবর্তন। আগে বাজারে সনাতন পদ্ধতিতে তৈরি খোলা সেমাইয়ের প্রাধান্য থাকলেও এখন বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোড়কজাত সেমাই বেশি বেচাকেনা হতে দেখা যায়। তাদের বিদেশেও রপ্তানি দ্রুত বাড়ছে। দেশ-বিদেশ মিলিয়ে পণ্যটির বাজার এখন হাজার কোটি টাকা ছুঁইছুঁই করছে।

spot_img

এ বিভাগের আরও সংবাদ

spot_img

সর্বশেষ সংবাদ

spot_img