ঢাকা, বাংলাদেশ ।

শুক্রবার, আগস্ট ১২, ২০২২

সন্তান হারানো বাবাই বিচারের মুখোমুখি

 গ্রিসে আশ্রয়প্রার্থী ২৬ বছরের এক আফগান বিচারের মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন। তাঁর বিরুদ্ধে পাঁচ বছর বয়সী ছেলের জীবন বিপন্ন করার অভিযোগ। ২০২০ সালের ৮ নভেম্বর বাবার সঙ্গে তুরস্ক থেকে গ্রিসে যেতে গিয়ে নৌকা ডুবে মারা যায় শিশুটি। পরদিন দূরে তার লাশ পাওয়া যায়।

হাফেজ (ছদ্মনাম) নামের ওই আফগানের সঙ্গে কথা বলেছে আল–জাজিরা। বুধবার বিচারের মুখোমুখি হবেন তিনি।

ছেলের মৃত্যুর সেই দুর্ভাগ্যজনক যাত্রার কথা বলতে শুরু করলে ধীরে ধীরে গলাটা ধরে আসে হাফেজের। সেদিন ছেলেকে বুকের সঙ্গে জড়িয়ে ভাগ্য উন্নয়নের আশায় নৌকায় চড়ে বসেছিলেন হাফেজ। মোট যাত্রী ছিলেন ২৪ জন। ইজিয়ান সাগরে গ্রিসের সামোস দ্বীপে পাথরের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে নৌকাটি ডুবে গিয়েছিল। হাফেজের বুক থেকে ছিটকে পানিতে তলিয়ে গিয়েছিল তাঁর সন্তান। পরে গ্রিস কর্তৃপক্ষ তাকে কেপ প্রাসোর তীরে একটি খাড়া পাথুরে অংশে খুঁজে পায়। এই এলাকাকে ‘কেপ অব ডেথ’ বলা হয়।

হাফেজ বলেন, সন্তানের উন্নত ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে লাখ লাখ মানুষের মতো তিনিও ইউরোপের উদ্দেশে যাত্রা করেছিলেন। তুরস্কে আশ্রয় চেয়ে তাঁর করা আবেদন দুই দফায় প্রত্যাখ্যাত হয়েছিল। তাঁকে আফগানিস্তানে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তুরস্ক কর্তৃপক্ষ।

হাফেজ বলেন, ‘আমি আমার সন্তানের ভবিষ্যতের কথা ভেবে এখানে এসেছি।’ স্মৃতিচারণা করে তিনি বলেন, ছেলে যে তাঁর কাছে কতবার জানতে চেয়েছে, কখন সে আবার স্কুলে যেতে পারবে। তিনি বুঝতে পারছেন না, তাঁর জীবনে এত বড় দুঃখজনক ঘটনা ঘটে যাওয়ার পরও কেন তাঁকে শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে।

আফগানিস্তান থেকে পালিয়ে আসা এই বাবা বলেন, ‘শুধু আমি নই। এমন অনেকে আছেন, যাঁরা গ্রিসে আসার পথে তাঁদের পরিবার, সন্তান, স্ত্রীকে হারিয়েছেন।’ তিনি বলেন, ‘তাঁরা কী প্রমাণ করবে? আমাদের সঙ্গে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে, তা–ই?’

আরও সংবাদ

spot_img

সর্বশেষ সংবাদ